অবৈধ’ নিয়োগপ্রাপ্তদের তোপে আবারো রাবির সিন্ডিকেট সভা পন্ড

উমর ফারুক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১০:৩১ PM, ২২ জুন ২০২১

চাকরী স্থায়ীকরণ ও দ্রুত যোগদানের দাবিতে ভিসি বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যাডহকের ভিত্তিতে বিতর্কিত নিয়োগপ্রাপ্তরা। রিপোর্ট লেখার আগ পর্যন্ত তাদের সেখানেই অবস্থান করতে দেখা গেছে।

এর আগে গতকাল সোমবার (২১ জুন) রাজশাহীর আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যস্ততায় আন্দোলন স্থগিত করলেও সিন্ডিকেট সভা শুরুর পূর্বে ভিসি বাস ভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচী পালন করছে তারা। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সিন্ডিকেট সভা শুরুর ঘন্টাখানেক আগে তারা সেখানে অবস্থান নেন।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়,  সন্ধ্যা সাতটায় উপাচার্য ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভা অনুষ্টিত হওয়ার কথা। এর আগেই ৬টার দিকে নিয়োগ পাওয়া ছাত্রলীগের নেতারা ভবনের গেটে অবস্থান নেন। এদের মধ্যে কয়েকজনকে সেখানে শুয়ে অবস্থান নিতেও দেখা যায়।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আন্দোলনের তোপের মুখে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট মিটিং স্থগিত রেখেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

আন্দোলনকারী ছাত্রলীগ নেতারা বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী। আমরা ছাত্রলীগের রাজনীতি করেছি। অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছি। নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে। সব কিছু বিবেচনায় নিয়ে সাবেক ভিসি আমাদের নিয়োগ দিয়েছেন।যা আমাদের প্রাপ্য। কিন্তু চলতি দায়িত্ব প্রাপ্ত ভিসি প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা কৌশলে আমাদের নিয়োগ আটকে দিয়েছেন। আমরা বারবার তার কাছে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাল-বাহানা করেছে। মন্ত্রণালয়ের অনুমতি নিয়ে সিন্ডিকেট মিটিং করতে পারে কিন্তু আমাদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত দিতে পারে না। আমাদের নিয়োগ স্থায়ী হোক বা না হোক আমাদের সিদ্ধান্ত জানাতে বলেছি। কিন্তু ভিসি মন্ত্রণালয়ের কাছে তার হাত পা বাঁধার কথা বলেন।
তারা আরো বলেন, আজ সিন্ডিকেট মিটিংয়ে আমাদের নিয়োগ বাতিলের প্রস্তাব করা হতে পারে। সেজন্য আমরা এখানে এসে অবস্থান নিয়েছি।

তারা আক্ষেপ করে বলেন, আমরা এতোদিন ধরে আন্দোলন করে আসতেছি। আমাদের নিয়েগ ত অবৈধ নয়। তাহলে কেনও আমাদের যোগদান স্থগিত করা হয়েছে।
এ বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়ার আশ্বাস দিয়েও প্রশাসন কিছুই করছে না। সিন্ডিকেট সভা আহ্বান করা হয়েছে।  আমাদের বিষয়ে চূড়ান্ত সমাধান না হওয়া পর্যন্ত সিন্ডিকেট সভা করতে দেওয়া হবে না।
এর আগে গতকাল রাজশাহীর আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যস্ততায় আন্দোলন স্থগিত করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ‘অবৈধ’ নিয়োগপ্রাপ্তরা।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থ বছরের শেষ ফাইন্যান্স (এফসি) কমিটির সভা হওয়ার কথা ছিল। সেদিন ১০টায় সভা হওয়ার কথা থাকলেও সকাল ৯টার মধ্যেই চাকরিপ্রাপ্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবন, সিনেট ভবন ও উপাচার্যের বাসভবনে তালা দেন। এতে সেদিনের সভা স্থগিত হয়ে যায়। ফলে এফসি সভার সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার ২২ তারিখের সিন্ডিকেট সভাও স্থগিত করে প্রশাসন।

পরে গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১২টায় বিদ্যমান সমস্যা সমাধানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের সংসদ সদস্য ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. আয়েন উদ্দিন ও রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার ক্যাম্পাসে আসেন।

পরে তারা প্রশাসন ভবনের কনফারেন্স কক্ষে প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। প্রশাসনের পক্ষে আলোচনায় ছিলেন রুটিন উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা এবং উপ-উপাচার্য চৌধুরী মো. জাকারিয়া, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর লিয়াকত আলি। নিয়োগপ্রাপ্তদের মধ্যে ছিল ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ইলিয়াস হোসেন, বর্তমান সহ-সভাপতি ফারুক হাসানসহ ছাত্রলীগের নিয়োগপ্রাপ্ত প্রায় ১৫ জন নেতাকর্মী।
নিয়োগপ্রাপ্তদের বিষয়ে উপাচার্য বলেন, “আমরা নিয়োগপ্রাপ্তদের আশ্বস্ত করেছি। নিয়োগরাপ্তদের বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন জারি করায় এবিষয়ে আমাদের হাত-পা বাঁধা রয়েছে। আমরা শিক্ষামন্ত্রণালয়কে এবিষয়ে একটি বিহিত করতে অনুরোধ জানিয়েছি।”

আপনার মতামত লিখুন :