জাঁকজমকভাবে জবি ক্যারিয়ার ক্লাবের এক দশক পূর্তি উদযাপিত

অনুপম মল্লিক,জবি
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:২৪ PM, ০৫ জুন ২০২১

ক্যারিয়ার বিষয়ক জগন্নাথ বিশ্বদ্যিালয়ের অন্যতম সমৃদ্ধ ক্লাব জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার কাব (জেএনইউসিসি) প্রতিষ্ঠার দশ বছর পূর্ণ করে এগারো তম বছরে পদার্পণ করেছে। ২০১১ সালের পহেলা জুন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ঝাঁক উদ্যমী তরুণ শিক্ষার্থীদের সুদূরপ্রসারী চিন্তা ও প্রচেষ্টার মধ্য দিয়ে গড়ে ওঠে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ক্লাব।

প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই সংগঠনটির লক্ষ্য ছিল চাকরির বাজারের টিকে থাকার জন্য শিক্ষার্থীদের প্রয়ােজনীয় দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে তাদের আত্মউন্নয়ন এবং সৃজনশীল প্রতিভার বিকাশ ঘটানাে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ক্লাব এমন একটি প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করছে, যেখানে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন প্রােগ্রাম আয়ােজন করে কাজের মাধ্যমে শিখে এবং নিজেদের প্রতিভা বিকাশ করার সুযোগ পায়।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ক্লাব শিক্ষার্থীদের নিয়ে তাদের লক্ষ্যে অবিচল থেকে ধীরে ধীরে এগিয়ে চলছে। এরই ধারাবাহিকতায় ক্লাবটি আয়োজন করেছে জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযােগিতাসহ বিভিন্ন ক্যারিয়ার ডেভেলপমেন্ট কর্মশালা, প্রতিযোগিতাসহ অন্যান্য অনুষ্ঠান। স্বপ্নের ক্যারিয়ার গঠনে জবি ক্যারিয়ার ক্লাবের উদ্যোগে এ পর্যন্ত আয়োজিত হয়েছে বিভিন্ন ধরনের ক্যারিয়ার বিষয়ক কর্মশালা, প্রশিক্ষণ এবং সেমিনার। এসব প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জবি শিক্ষার্থীরা পেয়েছে পাওয়ার পয়েন্ট, প্রেজেন্টেশন, পাবলিক স্পিকিং, সিভি রাইটিং এবং কেইস কম্পিটিশন সহ বিভিন্ন ক্যারিয়ার গঠনের দক্ষতা সর্ম্পকে ধারণা।

লকডাউনের কারণে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরও থেমে থাকেনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ক্লাবের কার্যক্রম। তারা ইতিমধ্যে অনলাইনে বিভিন্ন কোর্স ও প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে। জবি ক্যারিয়ার ক্লাব করোনাকালীন সময়েও সম্পূর্ণ অনলাইনভিত্তিক কন্টেন্ট রাইটিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন, লগাে মেকিং, ভিডিওগ্রাফির প্রতিযােগিতা ক্রিয়েটিভ ম্যানিয়াক সহ বিভিন্ন কোর্সের আয়ােজন করেছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ক্লাবের ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠিত হয়েছে চারদিনব্যাপী অনলাইন সেশনের জমজমাট আয়োজন। ১লা জুন থেকে শুরু হয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার এই আয়োজন চলে ৪ঠা জুন পর্যন্ত। আয়োজনের প্রথম দিন উপস্থিত ছিলেন জবির এবং ক্লাবটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্যরা। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিন ২রা জুন ‘প্রফেশনাল গ্রমিং এন্ড এটিকেট’ এর উপর একটি সেশন অনুষ্ঠিত হয়। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নগদের চিফ পাব্লিক এফেয়ার্স অফিসার’ সোলায়মান সুখন। ৩য় দিন অনুষ্ঠিত হয় ‘স্টেপ টুওয়ার্ডস সিভিল সার্ভিস ‘এর উপর একটি সেশন যেখানে অতিথি হিসেবে ছিলেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ এর এডিশোনাল ডেপুটি কমিশনার। ৪র্থ সেশন এবং সমাপনী সেশন অনুষ্ঠিত হয় ৪ঠা জুন ব্রান্ডিং ইউরসেল্ফ: শো ইউর এক্সেলেন্সি’ এর মধ্যে দিয়ে এবং এই সেশনের মাধ্যমে চারদিন ব্যাপী আনুষ্ঠানিকতার পর্দা নামে। শেষদিন অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘তরুণ’ এর কো ফাউন্ডার রাফিদ ইলাহি চৌধুরী, মিশন সেইভ বাংলাদেশ এর প্রেসিডেন্ট মোঃ তাজদিন হাসান একই সাথে তিনি ডেইলি স্টার এর চিফ স্ট্রাটেজি এন্ড ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন অফিসার স্মার্টিফায়ার একাডেমি এর ফাউন্ডার এবং সিইও মোঃ সোহান হায়দার।

জেএনইউসিসির এক্সিকিউটিভ সুমাইয়া পীথি বলেন, “তিনদিনের সেশনে বেস্ট বেস্ট স্পিকারদের কাছ থেকে তাদের নিজেদের এক্সপেরিয়েন্স জানার মাধ্যমে নিজের মধ্যে একটা আালাদা কনফিডেন্স তৈরি হয়েছে। পাশাপাশি জেএনইউসিসি এর একজন সদস্য হিসেবে পুরো প্রোগ্রাম অরগানাইজে কাজ করার মাধ্যমেও আমি অনেক কিছু শেখার সুযোগ পেয়েছি। ১০ম বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে জেএনইউসিসি তাদের মেম্বারদের এবং বাকি সবার জন্য যে লার্নিং অপরচুনিটি ক্রিয়েট করেছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়।”

ক্লাবটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল রাহাত বলেন, “জেএনইউসিসি সবসময় ছাত্রছাত্রীদের দক্ষতা ও সৃজনশীলতা বৃদ্ধিতে কাজ করে যাচ্ছে। আগামী দিনগুলোতেও জেএনইউসিসি বেশ কিছু জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের দক্ষতা ও সৃজনশীলতা বিষয়ক কার্যক্রম শিক্ষার্থীদের উপহার দেওয়ার জন্য কাজ করে যাবে।”

ক্লাবটি বর্তমান সভাপতি জাহিদুল ইসলাম বলেন, “আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকে পরবর্তী জেনারেশনের কর্পোরেট লিডার হিসেবে তৈরী করার জন্য কাজ করছি। ক্লাবটি একেবারে শুরু থেকেই শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ধরণের ট্রেনিং, নেটওয়ার্কিং এবং চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়া জবি শিক্ষার্থীরা নিজেদেরকে যেন চাকরিবাজারে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে গড়ে তুলতে পারে সেজন্য প্রতিনিয়ত বিভিন্ন জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগীতার আয়োজন করে যাচ্ছি। ভবিষ্যতেও আমাদের এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে।”

আপনার মতামত লিখুন :