প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের ৪০ শিক্ষার্থীকে শোকজ: নোটিশে বানান ভুলের ছড়াছড়ি

কুবি প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১২:৩০ AM, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১

সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখালেখি, বিভাগের বিরুদ্ধে আন্দোলনে অংশগ্রহণের কারণে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের একটি ব্যাচের সকল শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। রোববার বিভাগীয় প্রধান মুহাম্মদ সোহরাব উদ্দীন স্বাক্ষরিত এ নোটিশটি শিক্ষার্থীদের দেওয়া হয়। তবে নোটিশ প্রদানের খবর প্রকাশ হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে। এরমধ্যে নোটিশটিতে ভুল বানানের ছড়াছড়ি নিয়ে বির্তকের সৃষ্টি হয়েছে।

নোটিশটিতে দেখা যায়, নোটিশে ‘সোসাল’ লেখা হলেও এর শুদ্ধ বানান ‘সোশ্যাল’ ।‘ফেইজবুক’ লেখা হলেও এর প্রচলিত বানান ‘ফেইসবুক অথবা ফেসবুক’। নোটিশে ‘আভ্যন্তরীন’ লেখা হলেও ব্যাকরণ অনুযায়ী ‘আভ্যন্তরীণ’ অশুদ্ধ শব্দ, এর শুদ্ধ শব্দ হচ্ছে অভ্যন্তরীণ, আভ্যন্তর, আভ্যন্তরিক। এরপর নোটিশে ‘স্মরণাপন্ন’ শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে, যার শুদ্ধ বানান হচ্ছে ‘শরণাপন্ন’। এরপর নোটিশে ব্যবহৃত ‘লঙ্ঘণ’ শব্দের শুদ্ধ বানান হচ্ছে লঙ্ঘন। নোটিশে ‘স্কিনশট’ লেখা হলেও প্রচলিত বানান ‘স্ক্রিনশট’, কর্মকান্ডের শুদ্ধ বানান ‘কর্মকাণ্ড’।

শিক্ষার্থীদের এ ধরনের নোটিশ দেওয়া নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্লাটফর্মগুলোতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে শিক্ষার্থীরা। নোটিশের বানান ভুল নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করা হলে সেখানে এক নোটিশে এত বানান ভুল নিয়ে শিক্ষার্থীরা বিস্ময় প্রকাশ করে বিভিন্ন মন্তব্য করেন। একজন মন্তব্য করেন, ‘মাধ্যমিকে বাংলায় পাশ করে শিক্ষক হয়েছে কিনা সেই প্রশ্ন কেউ করে বসলে তো বিপদ!’

মো তরিকুল ইসলাম নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, একটি বিভাগ যখন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে কোনো নোটিশ প্রদান করে সেখানে বাংলা বানানের ক্ষেত্রে অবশ্যই বিভাগীয় প্রধান থেকে শুরু করে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।কিন্তু আমরা দেখেছি প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ ১১ ব্যাচের শিক্ষার্থীদেরকে শোকজ করেছে এবং সেখানে বাংলা বানানের যাচ্ছেতাই অবস্থা।বানানের ক্ষেত্রে আমাদেরকে আরো সচেতন হওয়া উচিত।

 

আপনার মতামত লিখুন :