ভালোর সাথে আলোর পথে, জোহা স্যারের আদর্শে অন্যায়ের বিরুদ্ধে

উমর ফারুক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৯:০৮ AM, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২১

গতকাল ছিলো ১৮ ফেব্রুয়ারি। উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থানে শহীদ ড. জোহা দিবস। দেশের ‘প্রথম শহীদ বুদ্ধিজীবী খ্যাত’ ড. জোহার শাহাদতবার্ষিকীকে শিক্ষক দিবস হিসেবে পালন করে থাকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। এ উপলক্ষে সাধারণ ছুটি ছাড়াও নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও বিভিন্ন সংগঠন।

“ভালোর সাথে আলোর পথে, জোহা স্যারের আদর্শে অন্যায়ের বিরুদ্ধে” এই স্লোগানকে সামনে রেখে ”প্রথম বন্ধুসভা” রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে ড.জোহা আত্মত্যাগ ও আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম” শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গতকাল বৃহষ্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারী) সন্ধ্যা ৭টূয় অনলাইনে এ আলোচনা অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছিলো। পুরো অনুষ্ঠানে সঞ্চালনায় ছিলেন সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক সিফাত হোসেন।অনলাইনে আলোচনায় অংশ নিয়েছিলেন তাঁরা 
ড.মো. শামসুজ্জোহার এই আদর্শকে বুকে ধারণ করে উক্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন রাবি বন্ধুসভার সভাপতি তারিফ হাসান মেহেদী, সহ-সভাপতি তৌফিক হাসান এলাহী, সাধারণ সম্পাদক শাদমান সাকিব নিলয়,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফাহমিদা আফরোজ মীম,দপ্তর সম্পাদক মোঃমাহমুদুল হাসান শাওন,প্রশিক্ষণ সম্পাদক মোঃ সানজিন আহসান,ক্রীড়া সম্পাদক আরবাব ইসলাম সাম্য,মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক তামান্না মল্লিক,মোঃ তুহিনুজ্জামান,সাবের হোসেন,নাঈম ইসফার সিরাত, আবু শাদাত বাঁধন,দূর্যোগ ও ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক তানভীর ইমাম, যোগাযোগ সম্পাদক বিনীতা বিশ্বাস,নুরুচ্ছাবাহ আক্তার আঁখি, সাবেক সভাপতি তাসনিম হোসেন, সাবেক তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আবিদ হাসান প্রমুখ।
প্রসঙ্গত, সৈয়দ মোহাম্মদ শামসুজ্জোহা (১ মে ১৯৩৪ – ১৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯) ছিলেন একজন বাঙালি  শিক্ষাবিদ এবং অধ্যাপক।তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক (তৎকালীন রিডার) ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের দায়িত্ব পালনকালে ১৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ সালে আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনের সময় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর আক্রমণের মুখে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের রক্ষা করতে গিয়ে শহীদ হন তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :