মেসিবিহীন বার্সার ঘাম ঝরানো জয়


  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৬:১০ PM, ২৪ জানুয়ারী ২০২১

স্কোরশিট বলছে ম্যাচটা বার্সেলোনা জিতেছে ২-০ গোলে। তবে লা লিগার দুর্বলতম প্রতিপক্ষ এলচের বিপক্ষে ম্যাচটা পুরোটা দেখে থাকলে সমর্থকরা হয়তো হতাশই হয়েছেন। যে হারে গোল মিসের মহড়া দেখিয়েছে স্প্যানিশ জায়ান্টরা, তাতে বরং বিরক্তই হওয়ার কথা ভক্তদের।

স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালে অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে লালকার্ড দেখে ২ ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ হওয়া দলীয় অধিনায়ক লিওনেল মেসি নেই এই ম্যাচেও। তার অভাব ফুটে উঠেছে এলচের বিপক্ষেও।
ম্যাচের কিছু পরিসংখ্যান দেখলে বুঝতে পারবেন, কেমন সুযোগ হারিয়েছে বার্সেলোনা! ম্যাচের প্রায় ৬৫ শতাংশ বল দখলে ছিল কাতালানদের। গোলমুখে তারা নিয়েছে ৮টি শট। কর্ণার আদায় করে নিয়েছে ৭টি। তারপরও ব্যবধানটা বাড়িয়ে নিতে পারেনি বার্সা।
উপরের পরিসংখ্যানই বলছে, শুরু থেকেই আক্রমন শানিয়েছে সফরকারীরা। তবে গ্রিজম্যান-ডেম্বেলে কিংবা ব্র্যাথওয়েট প্রতিপক্ষের জালে বল পাঠাতে পারেননি।
৩৯ মিনিটে এগিয়ে আসেন মিডফিল্ডার ফ্র্যাঙ্কি ডি ইয়ং। যদিও গোলটি অনেকটাই আত্মঘাতী গোলের মতো। ব্র্যাথওয়েট বল বাড়িয়ে দিয়েছিলেন গ্রিজম্যানের দিকে। তার আগে বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে এলচে ডিফেন্ডার সেটি পাঠিয়ে দেন নিজেদের জালের দিকে। ফাঁকায় পেয়ে বলে পা ছুঁইয়ে গোল নিশ্চিত করেন ডি ইয়ং।
১-০ লিড নিয়ে বিরতিতে যায় বার্সেলোনা।
দ্বিতীয়ার্ধ্বেও এলচেকে চেপে ধরে রোনাল্ড কোম্যান বাহিনী। তবে কাঙ্খিত গোলের দেখা পাচ্ছিলোনা তারা। বেশ কয়েকবার সুযোগ মিস করা ডেম্বেলেকে তুলে পর্তুগিজ উইঙ্গার ত্রিনকাওকে মাঠে নামান কোম্যান। তাতেও কাজের কাজ হচ্ছিলো না।
ম্যাচের ৮৭ মিনিটে রিকি পুইগকে নামান কোম্যান। লা মাসিয়া একাডেমির এই তরুণ খুব একটা পছন্দের নয় কোম্যানের। সে কারণেই কিনা, তাকে মাঠে নামাতেই আপত্তি বার্সা কোচের। অবশ্য কোম্যানের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন এবার পুইগ। মাঠে নামার মাত্র ২ মিনিটের মাথায় নাম তোলেন স্কোরশিটে। ৮৯ মিনিটে হেডে করা তার গোলটা লিড বাড়িয়ে দিয়েছে বার্সেলোনাকে।
এ নিয়ে টানা ১১ ম্যাচে এলচের বিপক্ষে অপরাজিত রইলো বার্সেলোনা। সঙ্গে সবশেষ ৯ ম্যাচে হারের মুখ দেখতে হলোনা কাতালানদেরকে। নড়বড়ে শুরুর পর মৌসুমে বেশ ভালোভাবেই ঘুরে দাঁড়িয়েছে তারা। আছে পয়েন্ট টেবিলের ৩-এ।

আপনার মতামত লিখুন :