রুবেলের মৃত্যুতে রাবিতে শোকের ছায়া

বিডি ক্যাম্পাস ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৬:০৭ PM, ০৯ জুলাই ২০২১

“যারা আমার সাথে মোবাইল ফোনে কিংবা অনেক সোসিয়্যাল মিডিয়ার মধ্যামে ট্রেস করার চেষ্টা করতেছেন দুঃখের সাথে জানাচ্ছি আমি আজ ৭ দিন ধরে টাইফয়েড, জণ্ডিস আরও বিশেষ রোগে আক্রান্ত এমন অবস্থায় আপনারদের সাথে কথা বলা খুবই অসম্ভব । যদি আল্লায় হায়াৎ রাখে ইনশাল্লাহ ফিরে আসবো। সবাই আমার জন্য করবেন।” গত বুধবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের একাউন্ট থেকে ঠিক দু দিন পূর্বে এই পোস্ট করে নিজের অবস্থার কথা বন্ধু ও পরিচিতদের জানিয়েছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অর্থনীতি বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের শিক্ষার্থী রুবেল আহমেদ। ভাগ্যর কি নির্মম পরিহাস,  তিনি আর ফিরলেন না। আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর পপুলার হাসপাতালের আইসিইউতে মারা যান তিনি। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।
জানা গেছে, রুবেলের বাড়ী মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায়, জুরান আলী মণ্ডলের ছেলে। বিশ্ববিদ্যালয়ের মতিহার হলে আবাসিক শিক্ষার্থী ছিলেন।
বন্ধুরা জানিয়েছে,  রুবেল খুব ভ্রমণ পিপাসু ছিলো। সময় পেলেই দেশের ভিন্ন প্রান্তে ঘুরতে বের হতো।
তারা আরো জানিয়েছে, জুনের মাঝামাঝি সময়ে বান্দরবান-খাগড়াছড়ি ট্যুরে যায় রুবেল, সেখানেই ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হন সেই সাথে জন্ডিস ধরা পড়ে। একই সঙ্গে কিডনি ও ফুসফুস সমস্যায় আক্রান্ত হয়।
প্রথমে তাকে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতাল ভর্তি করা হয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি হলে রাজধানীর ইবনে সিনা হাসপাতালের আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখান থেকে ল্যাবএইড, সর্বশেষ পপুলার হাসপাতালে আইসিইউতে মারা যান।

তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে বিশ্ববিদ্যালয় জুড়ে। অকালে বন্ধুর এমন চলে যাওয়াটা মেনে নিতে পারছেন না তার বিভাগের সহপাঠীরা।
শাকিল আহমেদ নামে একজন পোস্ট করে লিখেছেন, রুবেল এভাবে চলে যাবি এইটা  বিশ্বাস করতে খুব কষ্ট হচ্ছে রে। এইতো কিছুদিন আগে তোর সাথে আড্ডা দিয়ে আসলাম, হঠাৎ করে শুনলাম তুই অসুস্থ, আর এখন হঠাৎ করেই চলে গেলি না ফেরার দেশে, ছোটবেলা থেকে তোর সাথে কাটানো স্মৃতি গুলো অনেক বেশি মিস করব, ভালো থাকিস ওপারে, আল্লাহ তোকে জান্নাতবাসী করুক, আমিন।

শাফায়াত হোসেন নামে আরেকজন লিখেছেন ,এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না যে,তোর এই অমায়িক হাসিটা চিরতরে স্তব্ধ হয়ে গেছে। ক্যাম্পাসের শেষ দুইটা বছরে অজস্র স্মৃতি রয়েছে তোর সাথে।পাঠক ফোরামের সামনে তোর সাথে আর কখনও দেখা হবে না আর তুই জিজ্ঞেসও করবি না ভাই কোচিং থেকে আসলেন নাকি।কিছু কিছু চলে যাওয়া মানা যায় না।সবসময়ই আমাদের মাঝে থাকবি তুই না থেকেও। অপারে ভালো থাকিস ভাই।

স্মৃতি মনে করে ফারজানা মমি লিখেছেন, ক্যাম্পাসে হয়ত ফিরা  হবে ঠিকই কিন্তু ভালোবাসার জেলাসমিতিতে আপনাকে আর কখনো খুজে পাবোনা এভাবে।পোস্ট করতেছি কিন্তু  কেনো যেনো মানতে পারছিনা আপনার চলে যাওয়াটা। আর কিছু বলতে পারছিনা
আল্লাহ আপনাকে জান্নাতবাসী করুন,আমিন।

আপনার মতামত লিখুন :