“শিল্পকলা পদক” পাচ্ছেন রাবি অধ্যাপক মলয় ভৌমিক

উমর ফারুক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৩:৪৩ PM, ১৩ জুন ২০২১

বাংলাদেশের শিল্প ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে জাতীয় পর্যায়ে বিশেষ অবদানের জন্য ১৮ গুণিজন ও ২টি সংগঠনকে ‘শিল্পকলা পদক’ দেওয়া হচ্ছে।
যেখানে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশের বিশিষ্ট নাট্যকার, নির্দেশক ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের অধ্যাপক মলয় কুমার ভৌমিক।
বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির পাঠানো এক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

২০২০ সালের জন্য চূড়ান্ত মনোনীত নয় গুণিজন হচ্ছেন- নাট্যকলায় মলয় ভৌমিক,
যন্ত্র সঙ্গীতে সামসুর রহমান (সানাই), নৃত্যকলায় শিবলী মোহাম্মদ, কন্ঠসঙ্গীতে মাহমুদুর রহমান বেণু, চারুকলায় শহিদ কবীর, ফটোগ্রাফিতে মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম স্বপন, লোকসংস্কৃতিতে শাহ্ আলম সরকার, আবৃত্তিতে ডালিয়া আহমেদ, চলচ্চিত্রে শামীম আখতার এবং সৃজনশীল সাংস্কৃতিক সংগঠন হিসেবে ‘দিনাজপুর নাট্য সমিতি’।

করোনা মহামারির কারণে ২০১৯ এবং ২০২০ দুই বছরের পদক এক সঙ্গে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সুবিধামতো সময়ে পদক প্রদান অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পদকপ্রাপ্তদের হাতে স্বর্ণের মেডেল ও এক লাখ করে টাকা তুলে দেওয়া হবে বলেও জানা গেছে।

২০১৯ সালের জন্য চূড়ান্ত মনোনীত নয় গুণিজন হচ্ছেন- যন্ত্র সঙ্গীতে মনিরুজ্জামান (বাঁশী), নৃত্যকলায় লুবনা মারিয়াম, কন্ঠসঙ্গীতে হাসিনা মমতাজ, চারুকলায় আবদুল মান্নান, নাট্যকলায় মাসুদ আলী খান, ফটোগ্রাফিতে এম. এ তাহের, লোকসংস্কৃতিতে শম্ভু আচার্য (পট শিল্পী), আবৃত্তিতে হাসান আরিফ, চলচ্চিত্রে অনুপম হায়াত এবং সৃজনশীল সাংস্কৃতিক সংগঠন হিসেবে ‘ছায়ানট’।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের বিশিষ্ট নাট্যকার, নির্দেশক ও শিক্ষাবিদ মলয় ভৌমিক। পেশায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক হলেও নাট্যব্যক্তিত্ব হিসেবেই বেশি পরিচিত। নাটকে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৭ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠিত অনুশীলন নাট্যদলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা তিনি। বাংলাদেশে পথনাটক আন্দোলন, বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলে মুক্ত নাটক আন্দোলন গড়ে তোলার ক্ষেত্রে তাঁর ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে। তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধাও। মাত্র ১৫ বছর বয়সে ১৯৭১ সালে ৭ নং সেক্টরের অধীনে বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে তিনি সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন।

 

আপনার মতামত লিখুন :