স্থানীয়দের হামলায় আহত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০ শিক্ষার্থী

শিক্ষা ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:৪০ PM, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২১

ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে কমপক্ষে ২৫ থেকে ৩০ জন আহত হয়েছেন।শুক্রবার সন্ধ্যায় স্থানীয় বাসিন্দারা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ওপর এ হামলা চালায়। এ ঘটনায় অন্তত চারটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়-সংলগ্ন এলাকায় মসজিদগুলোতে মাইকিং করে স্থানীয় ব্যক্তিদের জড়ো করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী জানায়, বিশ্ববিদ্যালয়-সংলগ্ন এলাকায় মসজিদগুলোয় মাইকিং করে স্থানীয়দের জড়ো করা হয়। অন্যদিকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীরা জড়ো হয়ে পাল্টা আক্রমণের প্রস্তুতি নেন।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, গেরুয়া এলাকার মেসে দুই শতাধিক শিক্ষার্থীকে আটকে রাখা হয়েছে। তাদের উদ্ধারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তোলা হয়েছে। তাই সহপাঠীদের উদ্ধারের জন্য তারা জড়ো হয়েছেন বলে দাবি করেন। ফলে ঘটনাস্থলে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

এদিকে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া চলাকালে রাত আটটার দিকে পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। তারা স্থানীয়দের কাছ থেকে আহত শিক্ষার্থীদের উদ্ধার করেন। পরে তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রে চিকিৎসা দেয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান গণমাধ্যমকে বলেন, ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে স্থানীয়দের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ঝামেলা হয়। এরপর সেই সূত্রে ধরে স্থানীয় ব্যক্তিরা জড়ো হয়ে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায়। এতে একাধিক শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। এ ছাড়া বহু শিক্ষার্থীকে ক্যাম্পাস-সংলগ্ন এলাকার মেসগুলোতে আটকে রেখেছেন স্থানীয়রা।

পুলিশ সুপার শহিদুল ইসলাম জানান, বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকা গেরুয়া গ্রামে এই সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষের একপর্যায়ে এলাকাবাসীরা মাইকিং করে অস্ত্র নিয়ে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায়। এদিকে, বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অবস্থান করে আবাসিক হলগুলো খুলে দেয়ার দাবি জানিয়েছে। আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি।

আপনার মতামত লিখুন :